‘গ্রামবাসীকে স্বাস্থ্য বিধির কথা বলছেন নারী নেত্রী মিতা রানী পাল’

কুমিল্লা জেলা লাকসাম উপজেলার আজগরা ইউনিয়নের কালিয়া চৌ গ্রামে বসবাস করেন জনাব মিতা রানী পাল। তিনি পেশায় একজন স্বাস্থ্যকর্মী (প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত) এবং দি হাঙ্গার প্রজেক্টের বিকশিত নারী নেটওয়ার্কে নারী নেত্রী । কালিয়া চৌ গ্রামে স্বাস্থ্য আপা হিসাবে পরিচিত।

করোনাভাইরাসের মহামারীতে যখন গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত তখন বাংলাদেশেও এর বিস্তার দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে প্রাথমিকভাবে , মৌলিক স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা খুবই কার্যকর একটি উপায় হিসাবে বিশেষজ্ঞ মহল কর্তৃক স্বীকৃত হয়েছে।  আর এ বিষয়ে উৎসাহিত হয়ে  নিজের গ্রামের মানূষকে করোনাভাইরাসের কবল থেকে নিরাপদ রাখতে মৌলিক স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতন করছেন নারী নেত্রী মিতারানী পাল। মিতা রানী তার গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে সাবান দিয়ে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধোয়া, খোলা জায়গায় থু থু না ফেলা, বিশেষ প্রয়োজন ব্যাতিত বাইরে না যাওয়া, বাইরে গেলে মুখে মাস্ক বা নেকাব ব্যবহার করা, অন্য মানুষের সাথে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা প্রভৃতি বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করে আসছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.