করোনা প্রতিরোধে নারীনেত্রী আন্জুমানারা মিনি’র উদ্যোগ।

সারা দেশ যখন করোনাভাইরাসের ভয়ে আতঙ্কগ্রস্থ, মানুষ যেখানে ঘরের বাহির হতে ভয় পায়, সেখানে একজন নারী হয়েও এ ভাইরাসের প্রাদূর্ভাবের শুরু থেকেই এর বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছেন।

রংপুর জেলা গংগাচড়া উপজেলার কোলকোন্দ ইউনিয়নের ডিঙ্গাপাড়া গ্রামে বসবাস করেন দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ এর বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের নারী নেত্রী আনজুমানারা মিনি। তিনি বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের কোলকোন্দ ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি ও ডিঙ্গাপাড়া গ্রাম উন্নয়ন দলের সদস্য।

Read more

প্রতিবেশীর অক্সিজেন নাসরিন সরকার

রাজশাহী জেলার চারঘাট উপজেলার সরদহ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের পশ্চিম বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ এর বিকশিত নারী নেট ওয়ার্কের একজন বলিষ্ঠ নারীনেত্রী নাসরিন সরকার।

কোভিড’ ১৯ বাংলাদেশে আক্রান্তের পর থেকে বালিয়াডাঙ্গা গ্রামে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ বিষয়ে সচেতনতামূলক আলোচনা চালাচ্ছেন। সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, হাত ধোয়ার পদ্ধতি অনুশীলন করা, মাস্ক ব্যবহার করা, সামাজিক শারীরিক দুরত্ব মেনে  চলা , লিফলেট বিতরন করা সহ বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রচারাভিযান অব্যাহত।

Read more

মানুষের সেবায় একজন স্বেচ্ছাব্রতী হিসেবে সমাজের অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন নারীনেত্রী মাফরোজা বেগম।

নওগাঁ জেলার পত্নীতলা উপজেলার ঘোষনগর ইউনিয়নের কমলাবাড়ী গ্রামের দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ এর বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের নারীনেত্রী, ঘোষনগর ইউনিয়নের ৭,৮,৯ সংরক্ষিত আসনের সদস্য জনাব  মাফরোজা বেগম।

তিনি স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হিসেবে ঘোষনগর ইউনিয়নের ৩টি ওর্য়াডের যে সকল গ্রাম আছে, সকল গ্রামে করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতনতামূলক আলোচনা চালাচ্ছেন। মাস্ক ব্যবহার করা, ঘন ঘন সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, হাত ধোয়ার পদ্ধতি অনুশীলন, ২০০টি লিফলেট বিতরন, গ্রামের গুরুত্বপূর্ণস্থানে জীবানুনাশক ঔষধ ছিটানো, বাড়ীর আস-পাশ পরিস্কার-পরিছন্নতা রাখা, সামাজিক শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য  সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রচারাভিযান পরিচালনা অব্যাহত।

Read more

নারীনেত্রী জান্নাতুলের উদ্যোগে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ্য হবে মহব্বতপুর গ্রাম

মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলার বামুন্দি ইউনিয়নের মহব্বতপুর গ্রামের জান্নাতুল ফেরদৌস ও নিলা খাতুন দি হাঙ্গার প্রজেক্টের বিকশিত নারী নেটওর্য়াকের নারীনেত্রী।

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকেই করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিভিন্ন জনসচেতনামূলক কার্যক্রমের উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। নিজেদের মহব্বতপুর গ্রামের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হাত ধৌত করার নিয়মাবলী শেখানো, মাস্ক ব্যবহার করা এবং শারীরিক দূরত্ব মেনে চলা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। তাছাড়া বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে মা ও শিশুদের সুরক্ষিত রাখতে নয়টি হাত ধৌত করার কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

Read more

থেমে নেই হেমনগর গ্রামের সাহিদা ইসলাম

“আতঙ্কিত হবেন না, সচেতন হোন-সুস্থ থাকুন” এই শ্লোগান নিয়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমন রোধে হেমনগর ইউনিয়নের গ্রামে গ্রামে ঘুরছেন বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের নারীনেত্রী সাহিদা ইসলাম।

৮ মার্চ বাংলাদেশে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী সনাক্তের পর সারাদেশব্যপী আতঙ্কের যে ঢেউ বয়ে যায়, টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর উপজেলার হেমনগর ইউনিয়নেও সেই ঢেউয়ের ধাক্কা এসে লাগে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে তথ্যের ঘাটতি গ্রামবাসীর অসচেতনতা যেমন বাড়িয়ে দেয়, তেমনি তাদের মাঝে বৃদ্ধি পায় আতঙ্ক। ভাইরাসের চেয়ে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক।

সামাজিক দায়বদ্ধতার ভিত্তিতে যিনি চ্যালেঞ্জ গ্রহণে এগিয়ে আসেন, বিপদে যিনি মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান – তিনিই নেতা হয়ে ওঠেন। এমনই একজন নেতা সাহিদা ইসলাম।

Read more

করোনা ভাইরাস থেকে নিজে সুরক্ষা থাকা ও অন্যকেও সুরক্ষিত রাখতে মানবতার সেবা নিয়ে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন নারী নেত্রী মাহফুজা আক্তার

সারা দেশে যখন করোনা ভাইরাসের সংক্রমন দিনদিন বেড়েই চলেছে, মানুষ আতংকিত ও হতাশা গ্রস্থ হয়ে পড়ছে সে মুহূর্তে মানুষের মাঝে আত্মবিশ্বাস আর সচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করে যাচ্ছেন নারীনেত্রী মাহফুজা আক্তার। বরিশাল জেলা বাবুগঞ্জ উপজেলার চাঁদপাশা ইউনিয়নের বকশিরচর গ্রামের নারী নেত্রী ও গ্রাম উন্নয়ন টিম এর একজন সক্রিয় সদস্য মাহফুজা আক্তার। তিনি ২০১৩ সালে ১১৯ তম ব্যাচে দি হাঙ্গার প্রজেক্ট-বাংলাদেশ এর বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের নারী নেত্রী হিসাবে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

Read more

নারীনেত্রী ফিরোজা বুলবুল কলি: স্বেচ্ছাব্রতই যার নেশা

যশোহরের মনিরামপুর ডিগ্রী কলেজে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে শিক্ষকতা করেন জনাব ফিরোজা বুলবুল কলি। তিনি দি হাঙ্গার প্রজেক্টের বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এবং যশোর জেলা কমিটির সভাপতি। শুধু শিক্ষকতা নয়, বরং একজন স্বেচ্ছাব্রতী মানুষ হিসেবে সমাজে কাজ করতে তিনি বেশি ভালবাসেন।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকেই তিনি নিজ শহরের বিভিন্ন পাড়ায় হাত ধোয়ার গুরুত্ব ও মাস্ক ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা বিষষে জন-সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এই কর্মসূচিতে তাঁর ছাত্র-ছাত্রীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে।

Read more

অসহায়দের পাশে মর্জিনা বেগম

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়ন পরিষদের ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মর্জিনা বেগম। তিনি দি হাঙ্গার প্রজেক্টের বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের মুন্সিগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি। বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের সেই শুরু থেকেই স্থানীয় সরকারের সদস্য হিসেবে তিনি নিষ্ঠার সাথে নিজ ইউনিয়নের জনগণের সেবার দায়িত্ব পালন করছেন।

Read more

‘অসহায় মানুষের পাশে নারীনেত্রী নাজমা বেগম’

গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলার বল্লমঝাড় ইউনিয়রের মধ্য ধানগরা গ্রামে বসবাস করেন নারীনেত্রী নাজমা বেগম। তিনি দি হাঙ্গার প্রজেক্টের বিকশিত নারী নেটওয়ার্কের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সম্মানিত সদস্য এবং “অবলম্বন” সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক।

নারীনেত্রী নাজমা বেগম ও অঞ্জলী রাণী বল্লমঝাড় ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে জীবাণুনাশক ঔষধ ছিটানোসহ করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করার কাজ করেছেন।

Read more

বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণে সীমান্তে করোনা রোধে সোচ্ছার নারী নেত্রী কুলসুমা ও কলিমা

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি উপজেলাতে ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশের সর্বদক্ষিণে অবস্থিত নাফ নদীর তীরবর্তী টেকনাফ উপজেলার ঝুঁকি অত্যধিক। টেকনাফ উপজেলা বর্তমানে রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগোষ্ঠী মিলে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় পরিণত হয়েছে। এ উপজেলার মানুষকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষার লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি স্থানীয় সচেতন স্বেচ্ছাব্রতী মানুষের বিভিন্ন উদ্যোগ এলাকার মানুষের মাঝে সাড়া ফেলেছে। তেমনই একজন স্বেচ্ছাব্রতী কুলসুমা বেগম।

Read more